২৪শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ।। ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

রিপোর্টারের নাম : সাইফুল ইসলাম জুলহাস
  • আপডেট টাইম : ৬ সেপ্টেম্বর- ২০২০, ৫:২২ পূর্বাহ্ণ
  • 34 দেখা

বরগুনায় অতিরিক্ত ভুয়া পুলিশ সুপার হাফিজুর রহমান বাদলকে আটক করেছেন ডিবি পুলিশ। তিনি হলো বরগুনা সদর উপজেলার ৭ নং ঢলুয়া ইউনিয়নের নলি চরগাছিয়া গ্রামের আব্দুল মসজিদ দফাদারের ছেলে। শনিবার সন্ধ্যার দিকে বরগুনা পৌরসভার সামনে নিজের রায়দা ফার্মেসি থেকে আটক করা হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সাঈদের নামে একটি ভুয়া ফেসবুক একাউন্ট খুলে তার ছবি ব্যবহার করে দীর্ঘ এক বছর যাবত মেয়েদের সাথে অশ্লীল ছবি, ভিডিও দিয়ে কমপক্ষে ৭/৮ জনের সাথে শারীরিক সম্পর্ক করেন হাফিজুর রহমান বাদল। এমন একটি আইডি সন্ধান পেয়ে বিস্তারিত তথ্য নেওয়া শুরু করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার। পরে ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে বাদলের সন্ধান পেয়ে আটক করা হয়।

এ ব্যাপারে বরগুনা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেহেদী হাছান বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের নাম দিয়ে এবং ছবি ব্যবহার করে ভুয়া আইডি খুলে প্রায় ৬শ মানুষকে বন্ধু করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের পরিচয় দেয় বাদল । এরমধ্যে ১৫০ জনই হচ্ছে মেয়ে বন্ধু । তিনি ১শ মেয়ের সাথে চ্যাটিং করে এবং তাদেরকে অশ্লীল ছবি ও ভিডিও পাঠাতো। এর মধ্যে একাধিক মেয়ের সাথে শারীরিক সম্পর্ক করেছেন বাদল। আজ আমরা তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে জানতে পারি ফেইক আইডি টি পরিচালনা করে এই বাদল । পরে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে তাকে আটক করা হয়। তিনি সৌদি আরব থাকা অবস্থায় এই ভুয়া আইডিটি এক বছর যাবত পরিচালনা করেন।

তিনি আরো বলেন, এছাড়াও আমি শুনেছি বরগুনার অনেকে ভুয়া আইডি খুলে বিভিন্ন মানুষকে হয়রানি করে এবং আজেবাজে মন্তব্য করে যাচ্ছে।এমনকি বরগুনা সদর থানায় এ নিয়ে কয়েকটি সাধারণ ডায়েরিও করা হয়েছে। আস্তে আস্তে তাদেরকেও আইনের আওতায় আনা হবে।

বাদলের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থানার এসআই সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও পর্নোগ্রাফি আইনে দুইটি মামলা দায়ের করেন। আগামীকাল আদালতের মাধ্যমে তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পাঠানো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ সক্রান্ত অন্য খবর
shares